atirikta cittaya sarira durbala haya kena. অতিরিক্ত চিত্তায় শরীর দুর্বল হয় কেন? / একচোখ দেখলে অযাত্রা কেন?

অতিরিক্ত চিত্তায় শরীর দুর্বল হয় কেন:-


চিন্তা ছাড়া কোন মানুষ চলতে পারে না ঠিকই, কিন্তু চিন্তাশক্তি যদি বেশী মাত্রায় বেড়ে যায় তাহলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে বেশী চিন্তা করলে ব্েন উত্তেজিত হয়ে পড়ে। তখন স্বাভাবিক ভারসামা হারিয়ে ফেলে। তাই শরীরের বিভিন্ন অংশ থেকে বিভিন্ন রসের নিঃসরণ বাধা প্রাপ্ত হয়। সেকারণে শরীর অবশ হয়ে পড়ে এবং পরিপাক কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়। তাতে ক্ষুধার উদ্রেক কম থাকে শরীরে খাদ্য কমে গেলে শরীর ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে যায়। তখন শরীরের অস্থিরতা বেড়ে যায় তাই শরীরের প্রতি নিয়ম কঠোর ভাবে পালন করা উচিত তাতে শরীর ও মন দুটোই তৃপ্ত থাকে।

উপবাস করা শরীরের পক্ষে ভালো কেন:-



অমাবস্যা, পূর্ণিমা ও একাদশী উপলক্ষে উপবাসের প্রথা বহুকাল আগে থেকে আমাদের দেশে প্রচলিত আছে। অনেকে অবশ্য এ তুলিকে মিথ্যা কুসংস্কার বলে থাকেন। কিন্তু বৈজ্ঞানিকগণ বলেন উপবাস স্বাস্থ্যের পক্ষে উপযােগী। কারণ সমস্ত যন্ত্র একটানা দীর্ঘকাল চলতে থাকলে তার স্থায়িত্ব বেশিদিন থাকে না। তেমন মানব শরীরও একটি যন্ত্র স্বরূপ। আমাদের পেটে দীর্ঘদিনের কেনেবা জমে থাকে, একমাত্র উপবাসের মাধ্যমে পরিষ্কার করা সম্ভব। তাতেই সুস্থভাবে দীর্ঘজীবন লাভ করা যায়। এই প্রথা প্রচলন করে গেছেন প্রাচীন ফিগণ। আগেকার ঋষিগণ ছিলেন বড় বড় বৈজ্ঞানিক একথা আমরা নানান সিদ্ধান্তের মারফত উপলক্ি করতে পারি। অতএব এ প্রথা যুক্তিযুক্ত।


খাওয়ার আধঘণ্টা পরে ঘুমানো উচিত কেন?


আমাদের চিকিৎসা শাস্ত্রানুযায়ী, খাওয়ার আধঘণ্টা পর ঘুমানো উচিত। কারণ খাদ্য খাবার পেটে গেলে বিভিন্নগ্রন্থি থেকে বিভিন্ন রস এসে খাইয়ে মিশে খাবারকে ভালোভাবে হজম করতে সাহায্য করে। কিন্তু থেকে উঠে সঙ্গে সঙ্গে ঘুমিয়ে পডলে এই বস ক্ষরণ কম হয়। ফলে খাদ্য ঠিকমত হজম হতে পারে না বলে পেটের বিভিন্ন রােগ দেখা দেয়। তাই খাওয়ার অন্ততঃ আধঘন্টা পর ঘুমানাে সম্পূর্ণ বিজ্ঞানসম্মত।

 লাল পলা ব্যবহার মেয়েদের জন্য করা হয়েছিল কেন?

চল থেকে আমাদের সমাজে প্রচলিত রীতি হিন্দু মেয়েদের বিয়ের সময় লাল পূজা এবং সিদুর পরানো। এটা শুধু সাস্কার নয়। এর পিছনে বিজ্ঞানের কিছ বক্তব্য আছে। বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে দেখেছেন সিদুর পড়লে মাথা শাস্ত থাকে, হির থাকে এবং লাল পলা বা প্রবাল পরলে শরীরের অস্থিরতা বা চ্চলতা দূর হয়ে গিয়ে শরীরে একটা শাস্ত ন্র ফুটে ওঠে তাই জ্যোতি বিজ্ঞানের মতে স্তরটি যুক্তিসম্মত।


একচোখ দেখলে অযাত্রা কেন?

এক চোখ হাত ঢাপা দিয়ে এক চোম মােনােকে আমরা অযাা বলে মনে করি। এটার পেছনে কোন বিজ্ঞান সম্মত কারণ না থাকলেও মানবিক দিক থেকে আমাদের কাছে অমঙ্গলকর বলে প্রথা। আছে। তারা এটা একটা দৃষ্টিকটু নলে মনে হয়। দিব্যি দুটো চোখ থাকতে আমরা এক চোখে না দেখতে যাব কেন। অদ্ধ বা কানাদের ব্যাপার সম্পূর্ণ আলাদা। প্রাকৃতিক কারণে তাদের এমন দুরবস্থা। নি যেখানে দুচোষ ভাল দেখে ব্যবস্থা করে নিয়েছে সেখানে প্রকৃতি ও মাত্রা কারীকে অপমান করার তার কোন অধিকার নেই। তাই অনধির ১১ তে ঘটে যায় না। একাগ প্রথা প্রচলিত।